অনুসন্ধান

‘যাচাই’ সম্বন্ধে সচরাচর করা বিভিন্ন প্রশ্ন ও সেসবের উত্তর এখানে পাওয়া যাবে। আমাদের কার্যক্রম সম্পর্কে বিস্তারিত জানা যাবে যাচাই সম্পর্কে পেইজে। ওয়েবসাইটে ব্যবহৃত বিভিন্ন শব্দ ও পরিভাষার তালিকা পাওয়া যাবে টীকা-টিপ্পনি পেইজে। যা জানতে চাচ্ছেন তা এখানে না পেয়ে থাকলে, আমাদের সাথে যোগাযোগ করুন ফেসবুক পেইজে ইনবক্স করে অথবা, ইমেইল করুন [email protected] এই ঠিকানায়।

আপনাদের উদ্দেশ্য কি?

অনলাইনে প্রচারিত বিভিন্ন তথ্যের সত্যতা যাচাইয়ের মাধ্যমে আমরা বাংলাদেশের অনলাইন পরিবেশ আরও পরিচ্ছন্ন রাখবার চেষ্টা করছি। আর এর ফলশ্রুতিতে অনাকাঙ্ক্ষিত সহিংসতা, বিদ্বেষ ও বিভেদ কমিয়ে আমরা সহনশীল, দায়িত্বশীল ও যুক্তি নির্ভর সমাজ তৈরিতে ভূমিকা রাখবার প্রয়াস রাখি।

আমাদের সম্পর্কে আরও জানতে পারবেন এই পেইজ থেকে।

আমি কিভাবে আপনাদের সহযোগিতায় আসতে পারি?

আপনি বেশ কয়েকটি উপায়ে আমাদের সহায়তা করতে পারেন―

১। গুজবের সম্বন্ধে অবিহিত করে: কোন সন্দেহজনক ভাইরাল তথ্য বা ছবি পেয়ে থাকলে তা পাঠিয়ে সেটির সম্বন্ধে আমাদের অবহিত করতে পারেন।

২। তথ্য প্রদান করে: কোন গুজবের সম্বন্ধে আপনার সঠিক তথ্য জানা থাকলে সেটি আমাদের জানিয়ে সত্যতা নির্ণয়ে আমাদের সহযোগিতা করতে পারেন।

৩। কমিউনিটিতে কন্ট্রিবিউট করে: যাচাইয়ের ফেইসবুক গ্রুপের বিভিন্ন পোস্টে আপনার অভিমত, বিশ্লেষণ ও তথ্য দিয়ে আমাদের কমিউনিটিকে সমৃদ্ধ করতে পারেন।

৪। বন্ধুদের মাঝে কথাগুলো ছড়িয়ে দিয়ে: আমাদের বিশ্লেষণগুলো ব্যক্তিগতভাবে যাচাই পূর্বক, শেয়ার করে সবার কাছে পৌঁছে দিয়ে আমাদের সহায়তা করতে পারেন।

৫। সর্বোপরি দায়িত্বশীল আচরণ প্রদর্শন করে: একমাত্র অনলাইনে দায়িত্বশীল আচরণ প্রদর্শনের মাধ্যমেই গুজবের প্রভাব কার্যকরভাবে কমিয়ে আনা সম্ভব।

আমি কি করে বুঝবো যে আপনারা যা বলছেন তা নির্ভুল?

আমরা আশা করি না যে কেউ আমাদের কোন বিষয়ের চূড়ান্ত কর্তৃপক্ষ মনে করুক। এছাড়াও কেউ আমাদের কথা যাচাই না করে বিশ্বাস করলে, তা হবে আমাদের লক্ষ্যের পরিপন্থী। তাই প্রতিটি বিশ্লেষণের নিচে ব্যবহৃত তথ্যসূত্রগুলো আমরা উল্লেখ করে থাকি। যাতে করে যে কোন পাঠক উল্লেখিত তথ্যগুলোর সঠিকতা নিজেই নিরূপণ করে নিতে পারেন।

আমি কি আপনাদের লেখাগুলো আমার ওয়েবসাইট/ব্লগ/পত্রিকায় প্রকাশ করতে পারি?

অবশ্যই না। আমাদের আর্টিকেলগুলো আপনি আপনার ওয়েবসাইট থেকে লিংক করতে পারেন কিংবা সোশ্যাল মিডিয়ায় লিংক শেয়ার করতে পারেন। কিন্তু আমাদের লেখাগুলো আপনার নিজস্ব ওয়েবসাইটে অনুলিপি তৈরি করে প্রকাশ, কিংবা সোশ্যাল মিডিয়া/ইমেইল/ব্লগ/ফোরামের মাধ্যমে লেখাগুলোর অনুলিপি বিতরণ করা – এগুলোর কোনটিই করতে পারবেন না।

এমন করা হলে সেটি কপিরাইট ভঙ্গ বলে গণ্য হবে। আপনি যদি কারও সাথে আমাদের কোন পোস্ট শেয়ার করতে চান, তাহলে তার সাথে সরাসরি পোস্টটির লিংক শেয়ার করুন। এতে সকল পাঠক সবসময় আপডেটেড তথ্য একস্থানে পাবে এবং অনাকাঙ্ক্ষিত ভুল বুঝাবুঝি এড়ানো সম্ভব হবে।

আপনাদের অধিকাংশ বিষয়গুলো 'ইসলাম' কিংবা 'মুসলমান' সংক্রান্ত গুজবের হয় কেন?

গুজবের সৃষ্টিই হয় মানুষের অনুভূতি, অজ্ঞতা কিংবা বিভিন্ন সংবেদনশীল বিষয়সমূহকে কেন্দ্র করে। ‘যাচাই’ বাংলাদেশ ভিত্তিক একটি উদ্যোগ এবং মুসলিম সংখ্যাগরিষ্ঠ এই দেশে গুজবগুলোও যেহেতু ইসলাম সংক্রান্তই বেশী হয়, তাই আমাদের আর্টিকেলগুলো, তুলনামূলক হারে, এটি সংশ্লিষ্ট বেশী হওয়াটাই স্বাভাবিক।

‘যাচাই’ কোনভাবেই নির্দিষ্ট কোন সংস্কৃতি, ধারনা কিংবা বিশ্বাসকে পালন করতে বিশেষভাবে উৎসাহিত বা নিরুৎসাহিত করে না।

আপনারা আপনাদের টপিকগুলো কিভাবে নির্বাচন করেন?

এই সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে পারবেন বিষয়বস্তু নির্বাচন পদ্ধতি পৃষ্ঠা থেকে। (পেজটি বর্তমানে নির্মাণাধীন)